রমনা পার্কে উৎসব আয়োজনে ফেসবুকে ঝড়
২০১৭

রমনা পার্কে উৎসব আয়োজনে ফেসবুকে ঝড়

December 27, 2014     Published Time : 05:06:23

উৎসব

রাজধানীর রমনা পার্কে বাংলালিংকের পৃষ্ঠপোকষকতায় ‘বাংলাদেশ উৎসব’ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। অনেক ফেসবুকে উৎসবের বিভিন্ন ছবি পোস্ট করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

শুক্রবার ফেসবুকে এই ক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে।

দেখা গেছে, অনেকে এ উৎসবের বিভিন্ন ছবি পোস্ট করে বিভিন্ন রকম মন্তব্য করেছেন। কেউ কেউ পার্ক সংরক্ষণে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ তুলেছেন। অনেকে এসব আয়োজনে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন। আয়োজকদের প্রতি অভিযোগের আঙুল তুলে অনেকে বলছেন, ‘কী কারণে পার্কে এ অনুষ্ঠান করা হচ্ছে।’

একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী বিভিন্ন রকম ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘প্রতিদিন শত শত নারী-পুরুষ প্রাতঃভ্রমণে যান রমনা পার্কে। রানী মাঠে একদল নারী-পুরুষ যোগব্যায়াম করেন। কাল সকালে তারা কোথায় যাবেন? একদিন না হয় যোগব্যায়াম না করল তারা। পার্কের পরিবেশ রক্ষা করবে কে? সন্ধ্যায় গিয়ে দেখলাম ছোট ছোট গাছ কেটে সেখানে স্টল করা হয়েছে। বাহ্ কি চমৎকার! খোঁজ নিয়ে জানলাম, গণপূর্ত মন্ত্রণালয় বাংলালিংক কোম্পানিকে অনুমতি দিয়েছে। তবে পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের আপত্তি ছিল। ফের পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে আপত্তি তুলে নেয় রহস্যজনক কারণে। মাইকের শব্দে পার্কের গাছে আশ্রয় নেওয়া পাখিগুলোও এদিক-সেদিক ছোটাছুটি করছে। হুতোম পেঁচা চোখ বের করে তাকিয়ে আছে।’

ফেসবুক ব্যবহারকারীর বিভিন্ন ছবি যাবে

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে রমনা পার্কে শুরু বাংলা লিংকের মেলা বাংলাদেশ মেলা। প্রধান উৎসবের উদ্বোধন ঘোষণা করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর। বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে তুলে ধরে দ্বিতীয়বারের মতো এ অনুষ্ঠান চলবে রাত ৯টা পর্যন্ত। অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী বুলবুল মহলানবীশ, শাহীন সামাদ, অনুপ ভট্টাচার্য, তিমির নন্দী, রফিকুল আলম, তপন মাহমুদ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক ও কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক, ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার (ডিএমপি) বেনজীর আহমেদ, বাংলালিংকের প্রধান ফিনান্সিয়াল কর্মকর্তা আহমাদ হালিম, প্রধান বাণিজ্যিক কর্মকর্তা শিহাব আহমাদ প্রমুখ।

আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রসংগীত, নজরুলসংগীত, বাউল সংগীত, হাসন রাজার গান, শাহ আব্দুল করিমের গান, গম্ভীরা ও ভাওয়াইয়া গান পরিবেশন, এস এম সুলতানের স্মরণে চিত্রাঙ্কন প্রদর্শনী এবং কবিতা আবৃত্তি করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উৎসবে গ্রাম-বাংলার বিয়ের উৎসব, বায়োস্কোপ, ঢেঁকি, গরুর গাড়ি, নাগরদোলা, পুতুলনাচ, মুড়ি-মুড়কি, পিঠাঘর, বানর নাচ, তাঁত প্রদর্শনী, কামার ও কুমারপাড়ার জীবনচিত্র, ঢোলবাদ্যসহ বাংলার গ্রামীণ সংস্কৃতির আবহ তুলে ধরা হয় ।

আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, উৎসবের শেষে ছিল মেগা কনসার্ট। কনসার্টে সংগীত পরিবেশন করেন বারী সিদ্দিকী, কনক চাঁপা, সামিনা চৌধুরী, জেমস, এস আই টুটুল, বাপ্পা মজুমদার, এলিটা ও কনা।
Think Tank Bangladesh 21232-/ 27