ভিয়েনায় তারেকের কুশপুত্তলিকা দাহ
২০১৭

ভিয়েনায় তারেকের কুশপুত্তলিকা দাহ

December 29, 2014     Published Time : 03:23:32

ভিয়েনা

মহান বিজয় দিবসের আলোচনা সভা রূপ নেয় প্রতিবাদ সভায়। আলোচনায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বক্তারা সবাই বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে তারেক রহমানের কট’ক্তির প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে তা প্রত্যাহারের দাবি জানান। অনুষ্ঠান চলাকালীন ক্ষুদ্ধ প্রবাসীরা তারেকের কুশপুত্তলিকা দাহ করেন।

বিজয়ের ৪৪তম দিবস উপলক্ষে অষ্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার প্যান এসিয়া হোটেলের হল রুমে ২৭ ডিসেম্বর বিকেলে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের উদ্দোগে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম। পরিচালনা করেন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির।

বাঙালির মুক্তি সংগ্রাম ও স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতাসহ এযাবত সকল শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালনের পর জাতীয় সংঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

বক্তব্য রাখেন, সর্বইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং অষ্ট্রিয়া প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী, লেখক, সাংবাদিক এম. নজরুল ইসলাম, কমিউনিটি নেতা আবিদ হোসেন খান তপন, অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুুল জলিল, আকতার হোসেন, সাইফুল ইসলাম জসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহি দাস সাহা, নয়ন হোসেন, আরিফ রহমান ও বিল্লাল হোসেন।

বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে সম্প্রতি তারেক রহমানের কট’ক্তির প্রশ্নে অনুষ্ঠানে এম. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশের জন্মের বিরুদ্ধে লড়াইকারী পাকিস্তানী জেনারেল জানজুয়ার মৃত্যুতে শোক বার্তা প্রেরণকারী নেত্রীর পুত্রের মুখে বাংলাদেশের স্থপতি সম্পর্কে ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যে অভাক হওয়ার কিছু নেই। পাকিস্তান প্রেমী এই লোটেরার অশালীন মন্তব্যে বাংলা ও বাঙালির মধ্যমণি বঙ্গবন্ধুর মর্যাদা বিন্দু মাত্র ক্ষুন্ন হবে না।’ তিনি বলেন, ‘সরকারের কাছে রাজনীতি না করার মুচলেকা দিয়ে ‘রাজনীতির অর্বাচীন বালক’ তারেক রহমান মিডিয়ায় নিজের নাম বজায় রাখতে এ ধরনের অতিশয়োক্তি করছেন। তাই বলে জাতির পিতাকে নিয়ে কট’ক্তি ক্ষমা করা যায় না।’ এম. নজরুল ইসলাম অষ্ট্রিয়াতে তারেককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন। এবং তারেক যেখানে যাবে সেখানেই তাঁকে প্রতিহত করার জন্য প্রবাসী বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসারীদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর স্বাধীনতাবিরোধী, যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসিত করেছিল জে. জিয়াউর রহমান। আজ তার স্ত্রী খালেদা আর পুত্র তারেক যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য মরিয়া হয়ে লেগেছেন। কোন পথ না পেয়ে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে আবোলতাবোল বকছে। ষড়যন্ত্র করে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করছে।

সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির অবিলম্বে তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে বিচারের সম্মুখীন করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে দাবি জানান।

বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাঙালির উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে মুক্তিযুদ্ধের গান ও দেশাত্বকবোধক গান পরিবেশন করেন, অষ্ট্রিয়া প্রবাসী কণ্ঠশিল্পী পূর্ণা, ইশিতা সাহা, রামিতা সাহা, বীথি দাস, কামাল হোসেন ও পজ্ঞা। এছাড়া নৃত্য পরিবেশন করেন শিশুশিল্পী সুবর্ণ মন্ডল, রামিতা সাহা ও প্রিমা সাহা।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন, রুহি দাস সাহা। তবলায় ছিলেন, বিশ্বজিদ ঘোষ, মিউজিকে ছিলেন, আরিফ রহমান। নৈশ ভোজের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।
Think Tank Bangladesh 21232-/ 29